Breaking News

ট্যাবাগেড়ীয়া ফেরিঘাটে সেতু নির্মাণের দাবিতে ডেবরায় মিছিলে অংশ নেন প্রায় ৫ হাজার মানুষ

ট্যাবাগেড়ীয়া ফেরিঘাটে সেতু নির্মাণের দাবিতে ডেবরায় মিছিলে অংশ নেন প্রায় ৫ হাজার মানুষ

ট্যাবাগেড়ীয়া ফেরিঘাটে সেতু নির্মাণের দাবিতে ডেবরায় মিছিলে অংশ নেন প্রায় ৫ হাজার মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদন, ট্যাবাগেড়ীয়া ফেরিগাটে সেতুর দাবি যেন এক প্রবাহমান ইতিহাস। স্বাধিনতার পরবর্তী সময় ১৯৭২, ডেবরার মূল জনস্রোত থেকে বিচ্ছিন্ন ১,২,৭,৮ চারটি অঞ্চল সহ ডেবরা ব্লকের সকল মানুষ সেতুর দাবিতে আন্দোলনের শুরু করে। তৎকালিন ডেবরা বিধান সভার বিধায়ক রবিন্দ্রনাথ বেরা ট্যাবাগেড়ীয়া সেতুর জন্য রাজ্যসরকারের কাছে অর্থের অনুমোদন পেলেও তা শেষ পর্যন্ত সম্ভব হয়নি। এরপর দশকের পর দশক গড়িয়েছে, বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ভাবে সরকারের কাছে সেতু নির্মাণের দাবি করেছে জনগন। অবশেষে ২০১৮ সালের ৫ আগস্ট ১নং ভবানীপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বাসিন্দা সমাজসেবী গৌতম মাজী ৪ টি গ্রাম পঞ্চায়েতের অবহেলিত সাধারন মানুষকে সঙ্গে নিয়ে একটি অরাজনৈতিক দ্বীপান্তর মুক্তি সংগ্রামী মঞ্চ তৈরি করে।

স্থায়ী সেতু নির্মাণের জন্য আন্দোলন সংগঠিত করেন সমাজসেবী গৌতম মাজী। মুক্তি সংগ্রামী মঞ্চের উদ্যোক্তা সঞ্জয় গোস্বামী, সুজিত পারিয়াল, অরবিন্দ সাউট্যা, কেশব চক্রবর্তী, পুলকেশ কুইঁতি। এঁদের সকলকে সঙ্গে নিয়ে হাজার হাজার বঞ্চিত দ্বীপান্তরবাসী কখোনো ডেবরা বি ডি ও, কখোনো পশ্চিম মেদিনীপুর জেলাপরিশদ, কখোনো পশ্চিম মেদিনীপুর ডি এম -এর দরবারে কড়া নাড়িয়েছেন। এমনকি ডেবরাতে সারাদিনব্যাপী জাতিয় সড়ক অবরোধও করেছেন কিন্তু সর্বদা দাবি আদায়ে ব্যার্থ হয়েছেন তাঁরা। গতকাল অর্থাৎ শনিবার ফের ডেবরা চৌরাস্তার মোড়ে প্রায় ৫ হাজার মানুষ সমবেত হয়ে মূখ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করেন ও অবিলম্বে সেতু তৈরির দাবী করেন।

এদিন সম্পাদক গৌতম মাজী জানান, “আমরা স্বাধীনতার পরে কমবেশী ৪২ টি নির্বাচনে অংশ গ্রহন করেছি। প্রতিটি নির্বাচনের আগে সব নেতারাই প্রতিশ্রুতি দেন ক্ষমতায় এলে সেতু নির্মাণ করে দেবেন। নর্বাচন পেরিয়ে যায়, সরকারের সিংহাসন সাজিয়ে দেয় এই দ্বীপান্তরবাসী, কিন্তু সেতু আর হয় না। আজকে কয়েক লক্ষ দ্বীপান্তরবাসী জোটবদ্ধ হয়েছেন আবার, সেতুর নামে নামে আর টাকা লুঠ করতে দেবো না ডেবরা পঞ্চায়েত সমিতিক। ২০২১-এ বিধানসভা ভোটের আগে সেতুর কাজ না হলে ডেবরা বিধান সভার মানুষ আর কোনোও ভোটে অংশগ্রহন করবেন না। মুখ্যমন্ত্রীর জেলা সফরের আগে মুখ্যমন্ত্রীকে আমাদের এই একটাই বার্তা।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *