Breaking News

'উনি যদি দল না ছাড়তেন তাহলে হয়তো বুঝতে পারতাম না এই জেলায় এত মুক্ত বাতাস রয়েছে', শুভেন্দুকে কটাক্ষ ফিরহাদ হাকিমের

‘দল না ছাড়লে হয়তো বুঝতে পারতাম না এই জেলায় এত মুক্ত বাতাস রয়েছে’, শুভেন্দুকে কটাক্ষ ফিরহাদ হাকিমের

‘দল না ছাড়লে হয়তো বুঝতে পারতাম না এই জেলায় এত মুক্ত বাতাস রয়েছে’, শুভেন্দুকে কটাক্ষ ফিরহাদ হাকিমের

নিজস্ব প্রতিবেদন, বেশ কয়েকদিন আগে মেদিনীপুর শহরের কলেজ মাঠে শুভেন্দু অধিকারী সহ একাধিক তৃণমূল নেতা বিজেপিতে যোগদান করায় বুধবার পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথিতে কেন্দ্রের কৃষি আইন ও জনবিরোধী নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে তৃণমূলের পদযাত্রা ও জনসভা করলো ফিরহাদ হাকিম ও সৌগত রায়। এদিন কাঁথি এলাকার ডরমেটরি এই জনসভার আয়োজন করা হয়। এদিন বক্তব্য রাখতে গিয়ে ফিরোজ হাকিম বলেন, “শুভেন্দু অধিকারী ধান্দাবাজের জন্য না জেল যাওয়ার ভয়ে না অন্য কোনো কারণ রয়েছে যার জন্য তাকে বিজেপিতে যোগদান করতে হয়েছে। ভগবান যা করে মঙ্গলের জন্য করে, উনি যদি দল না ছাড়তেন তাহলে হয়তো বুঝতে পারতাম না এই জেলায় এত মুক্ত বাতাস রয়েছে, অনেক কর্মী সমর্থকরা আজ বলছে দাদা বেঁচে গেলাম, এখন আমাদের কাউকে রাজার প্রজা হয়ে আর থাকতে হবে না। “

এদিন বক্তব্য রাখতে গিয়ে নন্দীগ্রামের একাধিক আন্দোলনের কথা তুলে আনলেন তিনি। কিভাবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই আন্দোলন করেছে, সেই বিষয় নিয়ে একাধিক সাফল্যের কথা বলেন। এদিনের জনসভায় শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত বক্তব্যে শুধু উঠে আসে শুভেন্দু অধিকারীর প্রসঙ্গ। তিনি পরিবার তন্ত্র নিয়ে শুভেন্দুকে কটাক্ষ করে বলেন, “আজ শিশির অধিকারী যদি না আপনাকে রাজনৈতিক মঞ্চে নিয়ে আসত, তাহলে আপনাকে কেউ চিনতে পারতো না অর্থাৎ এক কথায় বলা যেতে পারে শুভেন্দু অধিকারী তৈরির পিছনে রয়েছেন শিশির অধিকারী। এদিন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ফিরহাদ হাকিম বলেন, “অটলবিহারীর জামানায় আমরা সিপিএমের বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলাম তাতে অটল বিহারী বাজপাই আমাদের সাত দিয়েছিলেন। কিন্তু সেই সময়টা আলাদা ছিল আর এই সময়টা আলাদা।

এদিন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ‍্য যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সহ সভাপতি সুপ্রকাশ গিরি, চন্ডিপুরের বিধায়ক অমিও ভট্টাচার্য্য, পটাশপুরের বিধায়ক জোর্তিময় কর, মামুদ হোসেন সহ অন্যান্য দলীয় কর্মীরা। এদিনের এই সভা শেষে কার্যত গোষ্ঠী কোন্দল প্রকাশ্যে আসে। জানা গিয়েছে, স্থানীয় তৃণমূল নেতা তরুণ জানা সভামঞ্চে একটু আসতে দেরি করায় তার নাম প্রকাশ না করায় কার্যত ক্ষোভ দেখায় তার অনুগামীরা। তরুণ জানা শুভেন্দু অধিকারীর অনুগামী হিসেবে পরিচিত ছিল। এদিন তিনি বলেন, “যতদিন শুভেন্দু অধিকারী তৃণমূলে ছিলেন ততদিন তার কাছের লোক হিসেবে পরিচিত ছিলাম আমি। আজ তিনি বিজেপিতে যোগদান করেছেন।” যদিও এই দিন মঞ্চে দেখা যায়নি পূর্ব মেদিনীপুর জেলার সভাপতিকে এবং তমলুক লোকসভা কেন্দ্রের সংসদ দিব্যেন্দু অধিকারীকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *